কেন সাকিবকে নিয়ে ভাবে না কোলকাতা নাইট রাইডার্স উত্তরে যা বলেছিলেন সাকিব 2021

আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্স ব্যর্থ হচ্ছে আর প্রশ্নটা বড় হয়ে উঠছে

কেন সাকিবকে নিয়ে ভাবে না কোলকাতা নাইট রাইডার্স উত্তরে যা বলেছিলেন সাকিব 2021


কেন রাসেল না থাকলেও সাকিব থাকে না ?

কেন 4 বলার নিয়ে একাদশ হলেও টিম ম্যানেজমেন্ট সাকিবকে নিয়ে ভাবে না কেন অভিজ্ঞ সাকিবকে? বসিয়ে অভিষেক করা হয় সেই ফোটকে ?এ প্রশ্ন গুলোর উত্তর হয়তো দিতে পারবেনা কলকাতা নাইট রাইডার্স।তবে কি সাকিবের কথাটাই সত্যি কেবল বাংলাদেশ বলেই এতটা অবহেলা এতো অবজ্ঞা।


Live Link Click Here


এই দুবাই, আইপিএল বাংলার ক্রিকেট প্রেমীদের কাছে জানো এক অসহ্য যন্ত্রণা,ওয়ান মোর গানের হাসি তিক্ত ও বিরক্তির একাদশে জায়গা হচ্ছেনা
দেশ সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান এর কিন্তু কেন ?

আসলে কি কোন যৌক্তিক কারণ আছে সবশেষ ম্যাচটা বিশ্লেষণে কি বোঝা যায় সাকিবকে নিয়ে কলকাতা নাইট রাইডার্স নিউজিল্যান্ডের টিম সেই ফোটকে অভিষেক করিয়েছে তিনি একজন উইকেটকিপার এবং ব্যাটসম্যান এখন কথা হচ্ছে দীনেশ কার্তিক নিয়মিত কিপিং করায় তাকে সেখানে সেখানে কাজে লাগানো হল না রইল বাকি ব্যাটিং,, রিভার সুইপ খেলতে গিয়ে রান আউট তার অবদান 4 বলে দুই রান।

একবার তার জায়গায় সাকিবকে ভাবুন তো, মাত্র অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দারুণ খেলে যাওয়া মিস্টার অলরাউন্ডার। শেষ মুহূর্তে স্কোরবোর্ডে 10 থেকে 20 টি রান করার সামর্থ্য রাখে সে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শেষ ওভারে গিয়ে ম্যাচ হারা কলকাতা নাইট রাইডার্স এর সাকিবে হতে পারতো মূল স্পিনার এমন কি মূল বলার




কেননা ইনজুরির কারণে এই ম্যাচে ছিলেননা এন্দ্রিয় রাসেল। স্বাভাবিক ভাবেই একজন অলরাউন্ডার রিপ্লেস একজন অলরাউন্ডার হবার কথা, কিন্তু একাদশী চারজন স্পেশালিস্ট বলার নিয়েই মাঠে নামেন মর্গান কেকেআর ক্যাপ্টেন কিংবা টিম ম্যানেজমেন্ট আশ্চর্য জনক ভাবে সাকিবের কথা ভাবেননি। পার্টটাইম বলার ভেনকাতেশ আই আর এর আউটকাম প্রথম 15 বলেই 30 রান দিয়েছে ম্যাচটা আর কোথায় থাকে। সাকিব থাকলে ম্যাচটা জিতে যেত তা হয়তো নয়, কিন্তু হিসেবের খাতা বলছে ভেনকাতেশ আই আর এর থেকে ভালো গোল করতে পারতো ,ভালো ব্যাট করতে পারতো

তাই কলকাতা পাঞ্জাবের ম্যাচটা শেষ ওভারে নয় ম্যাচের শুরুতেই প্র্যাকটিক্যালি হেরে গেছে।

সাকিব নিজেই বলেছে স্বাভাবিক ভাবে আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি, এটা আমার মাইনাস পয়েন্ট প্লাস পয়েন্ট না কখনোই, কারণ ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট আমাদেরকে নিয়েওই ভাবে চিন্তা করে না ,,


শাকিবের কথাটাই প্রায় চির সত্যি হয়ে আছে..


আইপিএলে বাংলাদেশের নিয়মিত দুই তারকা সাকিব আল হাসান ও মুস্তাফিজুর রহমান। ২০১০ সালের পর থেকেই আইপিএলে নিয়মিত খেলছে সাকিব। আর ২০১৬ সাল থেকে আইপিএলে অন্যতম আকর্ষণ হল কাটার মুস্তাফিজ। সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার দ্বীপ দাসগুপ্ত জানিয়েছেন আইপি এলে কেন বাংলাদেশের বেশি ক্রিকেটার খেলতে পারেন না।

দ্বীপ দাশ গুপ্ত এই সম্পর্কে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে বলেছেন, ‘আইপিএলে যারা খেলতে আসে তাদের বেশিরভাগ আগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে থাকে। দ্বিতীয়ত অনেকে বিশ্বজুড়ে নানান টি-টোয়েন্টি লিগ খেলে বেড়াচ্ছে। আর এসব ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের পারফরম্যান্স সবসময়ই মূল্যায়িত হয় বা মূল্যায়ন করা হয়। আইপিএলের দলগুলো বরাবর দেখে যে ক্রিকেটাররা বিগ ব্যাশ বা সিপিএলে কেমন খেলছে।

দ্বীপ দাশ গুপ্ত এই সম্পর্কে বাংলাদেশি খেলোয়াড়দের পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয়, যখন বাংলাদেশি খেলোয়াড়রা বেশি বেশি বিভিন্ন লিগে খেলা শুরু করবে, এবং ভালো খেলবে,তখন তাদের পারফরম্যান্স আরও বেশি বেশি সামনে আসবে আইপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজিদের। তখন হয়তো আমরা আইপিএলেও আরও বেশি বাংলাদেশি ক্রিকেটার দেখতে পাবেন।

লেখক (এম ডি জাবেদুর রহমান )


Leave a Reply

x